রামগতিতে বখাটের উত্ত্যক্তে মাদ্রাসা যাওয়া বন্ধ এক ছাত্রীর

রামগতি (লক্ষ্মীপুর) সংবাদদাতা: লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে স্থানীয় বখাটেদের উত্ত্যক্তে দু মাস ধরে মাদ্রাসা যাওয়া বন্ধ এক ছাত্রীর। এ বিষয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন ঐ মাদ্রাসা ছাত্রীর বাবা মো: শফিক। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার চর পোড়াগাছা সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেনির ছাত্রী আছমা আক্তারকে (১৪) মাদ্রাসায় যাওয়া-আসার পথে চরআলগী ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মো: রিয়াজের ছেলে মো: জনি (১৯) গত কয়েকমাস ধরে উত্যক্ত করে আসছে। একাধিকবার কুপ্রস্তাব দেয়। প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় আছমা আক্তারকে অপহরণ করে তুলে নিয়ে যাওয়ার হুমকি দেয়। ওই মাদ্রাসা ছাত্রী বিষয়টি বাড়িতে জানালে তার ভাই রায়হান জনিকে এসব থেকে বিরত থাকার অনুরোধ করতে গেলে তার সাথে কথা কাটাকাটি হয়। ভুক্তভোগি আছমার বাবা সফিক বিষয়টির মিমাংসা করতে গেলে পূর্ব বাকবিতন্ডার জেরে জনির নেতৃত্বে মো: বাবুল, রিয়াজ, শাহিন, মিলাদ আবদুস সালাম, কালাম ও সেলিমসহ বেশকয়েজ মিলে তার উপর হামলা করে। সফিক বাঁচাতে এসে রড এবং লাঠির আঘাতে আহত হন তার ছেলে মো: রাহান এবং ভাতিজা মো: এ্যানি। এ সময় এলাকাবাসী এগিয়ে এলে পালিয়ে যায় হামলাকারীরা। এ বিষয়ে কাউকে জানালে মেরে লাশ গুম করার হুমকি দেয় হামলাকারীরা।
এ বিষয়ে ভুক্তভোগি ছাত্রীর বাবা বাবা সফিক বলেন, ওদের ভয়ে মেয়েকে নিয়ে আতংকে আছি। জনির নেতৃত্বে বখাটেরা আমার বাড়ির আশাপাশে এখনো ঘুরাঘুরি করে। মেয়েটি ভয়ে বাড়ির বাহিরে যেতে পারছেনা। পড়ালেখা বন্ধ হয়ে যাওয়ার পথে।
মাদ্রাসার সুপার আবু আবদুল্যাহ নুর মোহাম্মদ জানান, মাহে রমযানের পর থেকে আছমা মাদ্রাসায় অনুপস্থিত রয়েছে। স্থানীয় জনি নামের একটি ছেলে তাকে উত্যক্ত করার কারনে সে মাদ্রাসায় আসতে পারছেনা বলে অভিভাবকরা আমাকে অবগত করেছেন।
রামগতি থানার অফিসার ইনচার্জ মো: মোসলেহ উদ্দিন জানান, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Shares